কাস্টোম অডিয়েন্স এবং লুকেলাইক অডিয়েন্সের মধ্যে পার্থক্য এবং কখন কোনটা ব্যবহার করবো


 কাস্টোম অডিয়েন্স এবং লুকেলাইক অডিয়েন্সের মধ্যে পার্থক্য এবং কখন কোনটা ব্যবহার করবো?

আপনার বিজনেসকে আরো নির্দিষ্ট অডিয়েন্সের কাছে নিতে হলে আপনাকে মার্কেটিং এর একটি পর্যায়ে এসে ফেসবুক অ্যাডভান্সড লেভেলের টার্গেটিং এ যেতে হবে, না হলে আপনি অন্যদের থেকে অনেক পিছিয়ে থাকবেন, আর সেই অ্যাডভান্সড লেভেলের মার্কেটিং এর অনেকগুলো ব্যাপারের মধ্যে একটি হচ্ছে কাস্টোম অডিয়েন্স এবং আরেকটি হচ্ছে লুকে লাইক অডিয়েন্স। দুইটা ব্যাপার ওতপ্রোতভাবে ভাবে জড়িত কারন কাস্টোম ওডিয়েন্স ছাড়া আপনি লুকে লাইক অডিয়েন্স বানাতে পারবেন না।

এখন একটু আলাদা করে বুঝার চেষ্টা করি।


কাস্টোম অডিয়েন্স কি-

নাম শুনলেই অনেকটা বুঝা যাচ্ছে, নিজের মত করে ফেসবুকে কিছু মানুষের ডাটাবেজ তৈরি করার নামই হচ্ছে কাস্টোম অডিয়েন্স। নিজের মত বললাম তারপরও এখানে ফেসবুক যে অপশনগুলো রেখেছে সেগুলোর উপর ভিত্তি করে করতে হবে। কি কি ভাবে আমরা কাস্টোম অডিয়েন্স তৈরি করতে পারি।

ইমেইল অথবা মোবাইল নাম্বার ব্যবহার করে

 এপের বিভিন্ন এক্টিভিটি ট্র্যাক করে

 ফেসবুক পেইজের বিভিন্ন এক্টিভিটি ট্র্যাক করে

 ভিডিও ভিউজে দেখার সময়কাল অনুযায়ী

 ওয়েবসাইটের বিভিন্ন এক্টিভিটি দিয়ে

 ইত্যাদি

এগুলোর মাধ্যমে আপনি ফেসবুকে কাস্টোম অডিয়েন্স তৈরি করে সেই অডিয়েন্স দিয়ে ফেসবুকে যে কোন ধরনের অ্যাডে ব্যবহার করতে পারবেন।

লুকে লাইক অডিয়েন্স কি-

এখানেও নাম শুনেই কিছুটা বুঝা যাচ্ছে, একই রকম অডিয়েন্স নিয়ে ফেসবুক একটি ডাটাবেইজ করে দিবে, এখন কথা হচ্ছে একই রকম অডিয়েন্স মানে কি? ধরুন আপনি ৫০০ ইমেইল নিয়ে একটি কাস্টোম অডিয়েন্স বানালেন, এরপর সেটা থেকে আপনি যদি লুকে লাইক অডিয়েন্স বানাতে চান তাহলে বানাতে পারবেন, সে ক্ষেত্রে ফেসবুক আপনাকে আরো বড় অডিয়েন্স এনে দিবে সেই ৫০০ অডিয়েন্সের সাথে মিল রেখে।

তাদের ফেসবুক এক্টিভিটি, লোকেশন, পড়াশুনা ইত্যাদি বিভিন্ন ভাবে ফেসবুক লুকে লাইক অডিয়েন্স তৈরি করে থাকে। তবে লুকে লাইক অডিয়েন্সে আপনি কাস্টোম অডিয়েন্সের উপর কতটা মিল রাখবেন সেটা ডিফাইন করা যায়, লুকে লাইক করার সময় কত % এ লুকেলাইক করবেন এটা দিতে হয়

কাস্টোম অডিয়েন্সের সাথে লুকে লাইক অডিয়েন্স করলে সুবিধা কি

অনেক সময় কাস্টোম অডিয়েন্স অনেক ছোট হয়ে যায় তখন আপনি অডিয়েন্সকে বাড়াতে লুকে লাইক অডিয়েন্স তৈরি করতে পারেন।  আর যেহেতু আপনার কাস্টোম অডিয়েন্সের সাথে মিল রেখে অডিয়েন্স তৈরি হচ্ছে সেখান থেকেও আপনার সেল আসতেই পারে, একটি উদাহারন দেই।

ধরুন আপনি মধু বিক্রি করেন, আপনি ২০০০ মানুষের কাছে মধু বিক্রি করেছেন যারা মধুতে আগ্রহী। এখন আপনি সেই ২০০০ মানুষের কাস্টোম অডিয়েন্স থেকে লুকে লাইক করলে আপনার লুকে লাইক অডিয়েন্স দিয়ে টার্গেট করা অ্যাড তাদের কাছেই যাবে যারা মধুতে আগ্রহী, এভাবে আপনি আগ্রহের জায়গা থেকে শুরু করে বিভিন্ন পয়েন্ট অফ ভিউ থেকে মার্কেটিং স্ট্রাটেজি সাঁজাতে পারেন।

কাস্টোম অডিয়েন্স এবং লুকে লাইক অডিয়েন্সের মধ্যে পার্থক্য

কাস্টোম অডিয়েন্স এবং লুকে লাইক অডিয়েন্স কি এক? না এক নয়, কাস্টোম অডিয়েন্সের অডিয়েন্সে একদম আপনার কোর অডিয়েন্স, যারা আপনাকে কোন না কোন ভাবে চিনে, কোন না কোন ভাবে আপনার পেইজ, ওয়েবসাইট ইত্যাদির সাথে পরিচিত।

কিন্তু লুকে লাইক অডিয়েন্স কিন্তু আপনার কোর অডিয়েন্স না, মার্কেটিং এর ভাষায় আমরা তাদেরকে "Cold" অডিয়েন্স বলে থাকি, মানে তারা আপনাকে আগে থেকে চিনে না, অথবা আপনার সাইট, পেইজে কোন এক্টিভিটি ছিলো না। তাহলে লুকে লাইক অডিয়েন্স কেন? সেটা উপরেই ব্যখ্যা করেছি যেহেতু তারা আপনার কোর অডিয়েন্সের মতই তাহলে তাদেরকে আপনার অ্যাড টার্গেটিং এ রাখা যেতেই পারে।


Attention : – Pls Visit Our সকল মুভি ডাউনলোড করুুন আমাদের মুভি ডাউনলোড ওয়েবসাইট থেকে and মুভি ডাউনলোড করতে না পারলে জয়েন করুুন টেলিগ্রামে এবং ডাউনলোড করার পিন ভিডিও দেখুন। Join Telegram Group

0 Response to "কাস্টোম অডিয়েন্স এবং লুকেলাইক অডিয়েন্সের মধ্যে পার্থক্য এবং কখন কোনটা ব্যবহার করবো"

Post a Comment